'যেই ইয়াবার সাথে জড়িত তাকে শাস্তি পেতেই হবে' - প্রধানমন্ত্রী

17:05 PM আওয়ামী লীগ

জাহেদ আরমান

গত ৬ মে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কক্সবাজারে কয়েকটি উন্নয়ন প্রকল্প উদ্বোধনের পর জনসভায় বলেছেন, “আমি শুনেছি কক্সবাজারের বদনাম রয়েছে, এখান থেকে নাকি ইয়াবা সাপ্লাই হয়।
“এটা বন্ধ করতে হবে। যেই এর সাথে জড়িত তাকে শাস্তি পেতেই হবে।”
লিংক: http://bangla.bdnews24.com/bangladesh/article1330701.bdnews

এখন দেখা যাক, প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের সঙ্গে কাজের কতটুকু মিল আছে।
একইদিন উন্নয়ন প্রকল্প উদ্বোধনের পর প্রধানমন্ত্রী বিকেলে সমুদ্র সৈকতে ঘুরতে যান। সেখানে তার সঙ্গে ছিলেন "ইয়াবা চোরাচালানের মূল পৃষ্ঠপোষক" আবদুর রহমান বদি। প্রমাণ নিচের ছবিতে।

 ২০১৫ সালের ১৮ জুন দৈনিক প্রথম আলো জানাচ্ছে, “মানব পাচার, ইয়াবা ও রোহিঙ্গাদের বৈধকরণ—এই তিন অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে টালমাটাল পর্যটন শহর কক্সবাজার। এর প্রভাব পড়ছে সারা দেশেও। সরকারের খাতায় এই তিন অপরাধেরই প্রধান পৃষ্ঠপোষক কক্সবাজার-৪ আসনের (উখিয়া-টেকনাফ) সাংসদ আবদুর রহমান বদি। সঙ্গে আছেন তাঁর ছয় ভাইসহ ২৬ জন কাছের ও দূরের আত্মীয়।”

পত্রিকাটি আরও জানায়, “মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের করা ইয়াবা চোরাচালানের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের তালিকায়ও সাংসদ বদিকে মাদকের মূল পৃষ্ঠপোষক বলা হয়। ওই তালিকায় তাঁর ১৭ জন আত্মীয়ের নাম আছে।”

লিংক: প্রথম আলো

আবদুর রহমান বদি টেকনাফ থেকে নির্বাচিত আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য। বক্তব্যের পরপরই তাকে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সমুদ্র সৈকতে দেখা যাচ্ছে। সুতরাং, মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত ক্ষমতাসীন দলের কারো জন্য প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্য কার্যকর নয়।

Related Post