৫৬০টি মডেল মসজিদ নির্মাণে সৌদি সরকার কি অাদৌ সহযোগিতা করছে?

18:06 PM আওয়ামী লীগ

জাহেদ আরমান: বাংলাদেশ সরকার এই বছরের শুরু থেকেই বলে আসছিলো, সৌদি সরকার বাংলাদেশে ৫৬০টি মডেল মসজিদ নির্মাণে অর্থায়ন করছে। কিন্তু সৌদি সরকার সেটি অস্বীকার করেছে। তারা বলেছে, এই ধরণের কোনো অঙ্গীকার তারা করে নি।
এই বছরের ২৪ মার্চ দৈনিক সমকালে প্রকাশিত “৫৬০ মডেল মসজিদ নির্মাণ করবে সরকার” শিরোনামের সংবাদে বলা হয়, “গত বছর [২০১৬] জুনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সৌদি আরব সফর করেন। ওই সফরে প্রধানমন্ত্রী সৌদি বাদশাহর সঙ্গে আলোচনায় দেশব্যাপী মডেল মসজিদ নির্মাণের বিষয়টি তুলে ধরে সহযোগিতার প্রস্তাব করেন। সৌদি আরব সরকার শেখ হাসিনার প্রস্তাব গ্রহণ করেন। সফর শেষে দেশে ফিরে প্রধানমন্ত্রী এই মডেল মসজিদের নকশা তৈরিসহ সামগ্রিক বিষয়ে প্রস্তুতি নিতে নির্দেশ দেন। সে অনুযায়ী পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের মাধ্যমে ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয় আর্থিক সহযোগিতা চেয়ে পাঠালে সৌদি সরকার তাতে সম্মতি দিয়েছে।”

বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে আরও জানানো হয়, এই মডেল মসজিদগুলো ইসলামী শিক্ষা ও সংস্কৃতি প্রসারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। এসব মসজিদে নারী-পুরুষের একসাথে অজু করা ও নামাজ পড়া, গ্রন্থাগার, সম্মেলন কক্ষ, গবেষণা কেন্দ্র, শিশুদের জন্য শিক্ষা সুবিধা, অতিথিশালা, মৃতদেহ সৎকার, হজযাত্রী ও ইমামদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা থাকবে।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এর ইউটিউব চ্যানেলে এ সম্পর্কিত একটি ভিডিও আপলোড় করা হয়েছে এই বছরের ২৭ এপ্রিল। ভিডিওটি পরেরদিন তাদের ভেরিফাইড ফেইসবুক পেইজেও শেয়ার করা হয়। এতে জানানো হয়, এই প্রকল্পের উদ্যোক্তা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। অর্থায়ন করছে সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আব্দুলাজিজ আল সউদ। আর সহ অর্থায়ন করছে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার।

প্রকল্পের ডিপিপির তথ্য অনুযায়ী, এসব মডেল মসজিদ নির্মাণে মোট আট হাজার ৯৩ কোটি ৯২ হাজার টাকা ব্যয় নির্ধারণ করা হয়েছে। এরমধ্যে সৌদি আরব সরকার ছয় হাজার ৮৭৩ কোটি ৯১ লাখ ৬৮ হাজার টাকা দিবে। বাকি এক হাজার ২১৯ কোটি ৯ লাখ ২৪ হাজার টাকা দেবে সরকার। ২০১৯ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়নের পরিকল্পনা করা হয়েছে।

কিন্তু সৌদি সরকার এই ধরণের প্রকল্পে অর্থায়ন করার কথা সরাসরি নাকচ করে দিয়েছে।

সৌদি আরবের সংস্কৃতি ও তথ্য মন্ত্রী আওয়াদ আল-আওয়াদ ফক্স নিউজকে বলেন, “সৌদি আরব কখনও বাংলাদেশকে মডেল মসজিদ নির্মাণের জন্য অর্থ বরাদ্দ করেনি। এটা সম্পূর্ণ ভূয়া সংবাদ।”

তিনি আরও বলেন, “যদি এই ধরণের কোন অঙ্গীকার সৌদি সরকার করতো তাহলে তা অবশ্যই যৌথ বিবৃতির মাধ্যমে জানানো হতো।”

Related Post