Donate

গণমাধ্যম

আংশিক সত্য

গণমাধ্যম

April 20, 2020, 3:44 pm

Updated: April 20, 2020, 5:40 pm

২ কোটি ‘মানুষ’ নয়, ২ কোটি ‘মোবাইলের সিম’

Author: BDFactCheck Admin Published: April 20, 2020, 3:44 pm | Updated: April 20, 2020, 5:40 pm

ইত্তেফাকের শিরোনাম, “চীনে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না ২ কোটির বেশি মানুষকে!”
https://bit.ly/2UnHjd9
সময় টিভি অনলাইনের শিরোনাম, “করোনা: চীনে ২ কোটিরও বেশি মানুষের খোঁজ নেই”
https://bit.ly/33NVI5r
কালের কণ্ঠের শিরোনাম, ” চীনে ২ কোটিরও বেশি মানুষ ‘নিখোঁজ’?”
https://bit.ly/39lW1Wh
সময় টিভির প্রতিবেদনের কিছু অংশ তুলে ধরা হলো–
“করোনা ভাইরাস বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়লেও এর প্রকোপ কমতে শুরু করেছে চীনে। তবে চীনের একটি আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স সাইট দাবি করেছে, দেশটি করোনা নিয়ে মিথ্যা কথা বলছে।
কারণ হিসেবে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স সাইটটি বলছে, ভ্রমণ, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এবং অনলাইনে কেনাকাটার জন্য চীনের নাগরিকদের রাষ্ট্রীয়ভাবে অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন করতে হয়। এবার চীনে প্রায় ২ কোটি ১৫ লাখ মানুষ এখনো তাদের মোবাইলে রেজিস্ট্রেশন করেননি। চীনের সরকারের পক্ষ থেকে এখনো এ নিয়ে কিছু বলা হয়নি। ধারণা করা হচ্ছে, এই ২ কোটি ১৫ লাখ মানুষ কোয়ারেন্টাইনে আছেন অথবা মারা গেছেন। আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স সাইটের পক্ষ থেকে দাবি করা হচ্ছে, বিশ্বে করোনার প্রকোপ কম দেখাতে চীনের সেনাবাহিনী হয়তো এই ২ কোটি ১৫ লাখ মানুষকে হত্যা করেও থাকতে পারে।”
অন্যান্য প্রতিবেদনগুলোও প্রায় একই রকম (বেশিরভাগ বাক্য ও প্যারা হুবহু মিলে যায়)।
এসব সংবাদে স্পষ্টই বুঝা যাচ্ছে, করোনার প্রকোপ শুরুর আগে সক্রিয় মোবাইলগুলো প্রকোপের সময় বন্ধ ছিলো। এরপর চীনে করোনা নিয়ন্ত্রণে আসতে শুরুর পর এখনও এসব মোবাইল নতুন করে সক্রিয় করা হয়নি। আর মোবাইল সক্রিয় করা হয়নি- এই তথ্য থেকে সংবাদে উপসংহার টানা হয়েছে, এই বিশাল সংখ্যক (২ কোটি ১৫ লাখ) মানুষ হয়তো করোনায় আক্রান্ত হয়ে কোয়ারেন্টাইনে আছেন, বা মারা গেছেন অথবা চীনের সেনাবাহিনী তাদেরকে মেরে ফেলেছে!
কিন্তু নির্ভরযোগ্য সংবাদমাধ্যম বলছে, প্রকৃত তথ্য এমন নয়।
বিজনেস বিষয়ে নামকরা মার্কিন সংবাদমাধ্যম ব্লুমবার্গ গত ২৩ মার্চ এ বিষয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে যার শিরোনাম, “China’s Mobile Carriers Lose 21 Million Users as Virus Bites.”
লিংক: https://www.bloomberg.com/news/articles/2020-03-23/china-s-mobile-carriers-lose-15-million-users-as-virus-bites
প্রতিবেদনে ব্লুমবার্গ জানায়, জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারি মাসে চীনের সবচেয়ে বড় তিনটি মোবাইল সেবাদাতা কোম্পানির মোট ২ কোটি ১০ লাখের বেশি গ্রাহক কমেছে, সাম্প্রতিক সময় যা নজিরবিহীন।
চীনে করোনা ভাইরাস ধরা পড়ে ডিসেম্বর মাসে। এরপরের দুই মাসে কেন মোবাইল ব্যবহারকারীর সংখ্যা এমন বড় আকারে কমে গেল তার কারণ জানতে একজন করপোরেট বিশ্লেষকের মতামত নিয়েছে ব্লুমবার্গ।
Chris Lane নামে ওই বিশ্লেষক যা বলেছেন তার মূল বক্তব্য হলো, মোবাইল ব্যবহারকারীর সংখ্যা এমনভাবে কমে যাওয়ার একটি সম্ভাব্য কারণ হতে পারে যেসব মানুষ নিজের বাড়ি থেকে অনেক দূরে কাজ করতেন তাদের অনেকে কর্মস্থলের জন্য একটি আর ব্যক্তিগত কাজে ভিন্ন আরেকটি মোবাইল সিম ব্যবহার করে থাকেন। চীনে জানুয়ারি মাস থেকেই কঠোর লকডাউন শুরু হওয়ায় ওই সময় থেকে এখনও কর্মস্থলের জন্য ব্যবহৃত সিমগুলো বেশিরভাগই অব্যবহৃত আছে।
বাংলাদেশের সংবাদমাধ্যমগুলোতে যেভাবে ২ কোটি ১৫ লাখ ‘মোবাইল ব্যবহারকারী’ বা ‘মোবাইলের সিম’কে ‘মানুষ’ হিসেবে উপস্থাপন করা হয়েছে তা অত্যন্ত বিভ্রান্তিকর। কারণ প্রথমত, কোনো কোম্পানির ১০০টি সিম বিক্রি হওয়া মানেই তা ‘অবশ্যই ১০০ জন মানুষই কিনে থাকবেন’- তা নয়। আর দ্বিতীয়ত, কোনো একটি মোবাইল সিম বন্ধ বা অব্যবহৃত থাকা মানেই সিমের মালিক মারা গেছেন বা নিখোঁজ হয়েছে- তা নয়। কিন্তু বাংলাদেশি সংবাদমাধ্যমগুলোর প্রতিবেদনেই তেমনটাই দাবি করা হয়েছে।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *