Donate

হেলথ চেক

হেলথ চেক

May 9, 2020, 1:42 pm

Updated: May 11, 2020, 7:44 pm

বিভ্রান্তিকর: আমেরিকায় তিন বার করোনায় আক্রান্ত যুবক ‘পাগল হওয়ার পথে’?

Author: Zahed Arman Published: May 9, 2020, 1:42 pm | Updated: May 11, 2020, 7:44 pm

যা দাবি করা হচ্ছে:

আমেরিকার সংবাদ মাধ্যম ফক্স মাধ্যমের বরাতে সময় টিভি জানাচ্ছে, আমেরিকার টেক্সাসে বসবাসকারী যুবক বার্মিয়া পরপর তিনবার করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ‘পাগল হওয়ার পথে’।

সময় টিভি জানাচ্ছে, “করোনায় আক্রান্ত আমেরিকার ওই যুবক ফক্স নিউজকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, নাকে আগের মতো ঘ্রাণ পাচ্ছি না। শরীর দুর্বল। মাথা ঘোরে। মনে হচ্ছে খুব শিগগিরই পাগল হয়ে যাব।”

বিডি ফ্যাক্টচেক-এর অনুসন্ধানে দেখা যাচ্ছে, ওই যুবকের অবস্থা উন্নতির দিকে। তাছাড়া তিনি ফক্স টিভিকে ‘পাগল হওয়ার পথে’ ধরণের কোনো বক্তব্য দেননি।

করোনাভাইরাসেএকবার আক্রান্ত হওয়ার পর ভালো হয়ে গেলে তা শরীরে ওই ভাইরাসের বিরুদ্ধে একধরণের প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে। ফলে দ্বিতীয়বার করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা সাধারণত ঘটে না। মার্কিন যুবকের তৃতীয়বার করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর ব্যতিক্রম তাই পুরো বিশ্বের গণমাধ্যম মার্কিন ওই যুবককে নিয়ে সংবাদ প্রচার করেছে।

সময় টিভির শিরোনাম কীভাবে পাল্টে গেলো?

সময় টিভি যাদের বরাতে সংবাদ প্রকাশ করেছে দেখা যাক সেখানে কী বলা হয়েছে।
ফক্স নিউজের শিরোনাম হচ্ছে, “Texas man sick with coronavirus for over 50 days: ‘Ready for it to be done'”। অর্থাৎ সময় টিভি ‘Ready for it to be done’ এর বাংলা করেছে ‘পাগল হওয়ার পথে’।

ফক্স টিভি ওই যুবককে উদ্ধৃত করে বলছে, “I’m ready for it to be done,” Christian Bermea, who has been isolating for over 50 days, told the news outlet. “I definitely feel a lot better than I did at the beginning, but I’m still not at 100 percent.”
অর্থাৎ আমি ভাল হওয়ার পথে। গত ৫০ দিন ধরে সঙ্গনিরোধে থাকা ক্রিশ্চিয়ান বার্মিয়া নিউজ চ্যানেলটিকে বলেছে, “করোনাভাইরাসে সংক্রমণের শুরুতে যে অবস্থায় ছিলাম এখন তা থেকে ভালো বোধ করছি, কিন্তু এখনও শতভাগ সুস্থ না।

অর্থাৎ ক্রিশ্চিয়ান বার্মিয়া এখানে পাগল হয়ে যাওয়ার কথা বলেননি।

দ্যা সান এবং মিরর কেউই তাদের শিরোনামে এবং সংবাদের ভিতরে “পাগল হওয়ার পথে” ধরণের উল্লেখ করে নাই।

সিদ্ধান্ত:
ফক্স নিউজের সূত্রে সময় টিভির করা প্রতিবেদনটি বিভ্রান্তিকর।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *