Donate

গণমাধ্যম

অসত্য

গণমাধ্যম

May 14, 2020, 10:00 am

Updated: May 14, 2020, 6:33 am

ভূয়া গবেষণার উপর ভিত্তি করে করোনাভাইরাস থেকে বাঁচার উপায় বললেন ভারতীয় পুষ্টি বিশেষজ্ঞ

Author: Zahed Arman Published: May 14, 2020, 10:00 am | Updated: May 14, 2020, 6:33 am

যা দাবি করা হচ্ছে:

ডিডি বাংলা নামক একটি ফেসবুক পেজ থেকে সাড়ে তিন মিনিটের একটি ভিডিও পোস্ট করা হয়েছে। যেখানে ভারতীয় বংশোদ্ভূত গবেষক ডক্টর দেবাশীষ বাগচি বলেন, “যখন আপনারা শুইতে যাবেন তখন লেবুর জলে একটু বেকিং সোডা দিয়ে আপনারা খাবেন। এটা ভাইরাসকে এন্ট্রি (মানব শরীরে প্রবেশ) থেকে বন্ধ করতে সহায়তা করে।” তিনি দাবি করেছেন ইসরাইলী বিজ্ঞানীরা এটা প্রমাণ করেছেন। দেখুন ভিডিওটি (২ মিনিট ১৫ সেকেন্ড থেকে ২ মিনিট ৪০ সেকেন্ড)।

ভিডিওটি এরই মধ্যে হাজার হাজার শেয়ার হয়েছে। 

বিডি ফ্যাক্টচেকের অনুসন্ধানে দেখা যাচ্ছে, বেকিং সোডা এবং লবন পানি খেলে তা শরীরে করোনাভাইরাস প্রবেশে বাধা দেয় এমনটি সত্যি নয় এবং এ ধরণের কোনো কিছু ইসরাইলী বিজ্ঞানীরা প্রমাণ করেননি। 

ফ্যাক্ট চেক:

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, “করোনাভাইরাসের কারণে সৃষ্ট রোগের জন্য এখন পর্যন্ত নির্দিষ্ট কোনো চিকিৎসা পদ্ধতি নাই। তবে রোগীর ক্লিনিকাল অবস্থার উপর ভিত্তি করে অনেক লক্ষণের চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।” 

ড. দেবাশীষ বাগচি ইসরাইলী বিজ্ঞানীদের বরাতে যে উপদেশ দিচ্ছেন সেখানে দাবি করা হচ্ছে, “বেকিং সোডা এবং লেবু রক্তের পিএইচ স্তর বৃদ্ধি করে যা রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে উন্নীত করে।” ওয়েবএমডি জানাচ্ছে, “আপনি যা খান না কেন আপনার রক্তের পিএইচ-তে যথেষ্ট পরিবর্তন আনবে না। আপনার শরীর সেই স্তরটিকে সবসময় স্থির রাখতে কাজ করে।” 

ওয়েবএমডি আরও জানাচ্ছে, মানুষের শরীরের রক্ত অম্লীয় না ক্ষারীয় তা পরিমাপ করা হয় পিএইচ স্তরের মাধ্যমে। পিএইচ এর মান শূণ্য মানে হচ্ছে সম্পূর্ণ অ্যাসিডযুক্ত, আর এর মান যখন ১৪ হয় তখন সম্পূর্ণ ক্ষারীয় হয়। আর ৭ হচ্ছে নিরপেক্ষ অর্থাৎ অম্ল ও ক্ষারের মাঝামাঝি। শরীরের বিভিন্ন প্রত্যঙ্গে এই পিএইচ এর মাত্রা ভিন্ন হয়।  মানুষের রক্ত সাধারণত ৭.৩৫ থেকে ৭.৪৫ এর মধ্যে থাকে অর্থাৎ সামান্য ক্ষারযুক্ত। আবার মানুষের পাকস্থলি অম্লীয়। পাকস্থলির পিএইচ ৩.৫ এর নীচে থাকে ফলে এটি যেকোনো খাবারকে ভেঙে গুঁড়ো করে দিতে পারে। আপনি অম্লীয় বা ক্ষারীয় যা-ই খান না কেন প্রস্রাবের মধ্য দিয়ে তা বের হয়ে গিয়ে শরীরে পিএইচ লেভেল একইরকম রাখে। অর্থাৎ বেকিং সোডা এবং লেবু রক্তের পিএইচ স্তর হ্রাস বা বৃদ্ধি করে না।

ড. দেবাশীষ দাবি করেছেন “লেবুর জলে একটু বেকিং সোডা দিয়ে খেলে এটা ভাইরাসকে এন্ট্রি (মানব শরীরে প্রবেশ) থেকে বন্ধ করতে সহায়তা করে।” এখানে উল্লেখ করা প্রয়োজন যে, করোনাভাইরাস মানবদেহে প্রবেশের সাথে লেবু আর বেকিং সোডা খাওয়ার কোনো সম্পর্ক নাই। করোনাভাইরাস মানুষের শরীরে প্রবেশ বন্ধ করার জন্য প্রয়োজন সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখা।

তথ্যসূত্র

ওয়েব এমডি

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

গুগল সার্চ

সিদ্ধান্ত:

১. ইসরাইলী বিজ্ঞানীরা এমন কোনো গবেষণা করেন নি যেখানে বলা হচ্ছে, বেকিং সোডা এবং লেবু রক্তের পিএইচ স্তর বৃদ্ধি করে যা রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে উন্নীত করে করোনাভাইরাস প্রতিরোধ করতে পারে।  

২. করোনাভাইরাস মানবদেহে প্রবেশের সাথে লেবু আর বেকিং সোডা খাওয়ার কোনো সম্পর্ক নাই। 


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *