চাঁদপুরের অনুষ্ঠানে কি ভারতের জাতীয় সংগীত গাওয়া হয়েছিল?

12:10 PM সামাজিক মাধ্যম

ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদক:

ফেসবুক ও ইউটিউবে একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে, যাতে শোনা যাচ্ছে একটি অনুষ্ঠানে ভারতের জাতীয় সঙ্গীত (জনগণমন-অধিনায়ক জয় হে...) গাওয়া হচ্ছে, এবং অতিথি ও দর্শক সারির সবাই দাঁড়িয়ে শ্রদ্ধা জানাচ্ছেন।

ভিডিওতে আরও দেখা যাচ্ছে, স্টেজের পেছনের ব্যানারে বড় অক্ষরে লেখা রয়েছে ‘ফরক্কাবাদ ডিগ্রি কলেজ’; নিচে লেখা ‘ফরক্কাবাদ, চাঁদপুর’। এছাড়াও লেখা আছে ‘ফরক্কাবাদ ডিগ্রি কলেজের নবনির্মিত মহাত্মা গান্ধী ভবন শুভ উদ্বোধন ও প্রীতি সমাবেশ’। স্টেজে অন্যান্য অতিথিদের মধ্যে ঢাকায় ভারতীয় হাইকমিশনার হর্ষ বর্ধন শ্রিংলাকেও দেখা যাচ্ছে।

সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওটি নিয়ে কয়েকটি পোস্টের স্ক্রিনশট দেখুন--

ভিডিওটির সত্যতা জানতে চেয়ে আমাদের ফেসবুক পেইজে বেশ কয়েকজন পাঠক টেক্সট করেছেন। বিশেষ করে তারা জানতে চেয়েছেন, ভিডিওতে যে সংগীতটি শোনা যাচ্ছে সেটি আসলেই ওই অনুষ্ঠানে গাওয়া হয়েছিল, নাকি এডিট করে গান সংযুক্ত করা হয়েছে?

এ বিষয়ে bdfactcheck.com এর অনুসন্ধানে জানা গেছে, গত ৫ অক্টোবর চাঁদপুরের ফরক্কাবাদ ডিগ্রি কলেজে মহাত্মা গান্ধী ভবন উদ্বোধন উপলক্ষ্যে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল। ভারত সরকারের অর্থায়নে (১.০৮ কোটি টাকা) নির্মিত ভবনটি উদ্বোধনে অতিথি হিসেবে ছিলেন ঢাকায় ভারতের হাই কমিশনার হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা।

অনুষ্ঠানটি নিয়ে জাতীয় সংবাদমাধ্যমে ওই দিন সংবাদ প্রকাশিত হয়েছিল। যেমন--

প্রথম আলোর প্রতিবেদন- নির্বাচনে ভারত হস্তক্ষেপ করবে না : শ্রিংলা

বিডিনিউজের প্রতিবেদন- নির্বাচন এ দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়: শ্রিংলা

ইত্তেফাকের প্রতিবেদন- চাঁদপুরে মহাত্মা গান্ধী ভবন উদ্বোধন করলেন শ্রিংলা

ওই অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত হয়েছিলেন চাঁদপুরের স্থানীয় সংবাদকর্মীরা। অনুষ্ঠানে উপস্থিত সাংবাদিকদের মধ্যে দেশের নামকরা একটি টিভি চ্যানেলের প্রতিনিধির সাথে কথা বলেছে bdfactcheck.com.

ওই সাংবাদিক জানিয়েছেন, অনুষ্ঠানের শুরুতে প্রথমে বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত এবং পরে ভারতের জাতীয় সংগীত গাওয়া হয়েছিল।

অর্থাৎ, ভিডিওতে শোনা যাওয়া গানটি এডিট করে যুক্ত করা হয়নি। তবে সামাজিক মাধ্যমে যেভাবে এককভাবে শুধু ভারতীয় জাতীয় সংগীতের ভিডিওটি ভাইরাল হয়েছে বাস্তবে শুধু ভারতীয় সংগীত গাওয়া হয়নি; বাংলাদেশের জাতীয় সংগীতের পর সেটি গাওয়া হয়েছিল।

Related Post