এবার রিজভীর এডিট করা ভিডিও ভাইরাল

18 December, 2018 05:12 AM ইলেকশন চেক ২০১৮

ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদক

এবার বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর একটি এডিট করা ভিডিও সামাজিক  যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। সেই ভিডিওতে রুহুল কবির রিজভী বলছেন, “২৬শে মার্চ থেকে ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে জিয়াউর রহমানের কোন অবদান নেই”। অনেক পাঠক ভিডিওটির সত্যতা যাচাইয়ের জন্য বিডি ফ্যাক্টচেকের কাছে ইমেইল ও ফেসবুক ম্যাসেঞ্জারে অনুরোধ জানিয়েছেন। বিডি ফ্যাক্টচেকের অনুসন্ধানে দেখা যাচ্ছে, রিজভীর বক্তব্য এডিট করে এমন বিভ্রান্তি ছড়ানো হচ্ছে।

আর এম নয়ন নামের একজন ফেসবুক ব্যবহারকারী ভিডিওটি “জয় বাংলা Facebook যোদ্ধা Public গ্রুপ” নামক একটি গ্রুপে শেয়ার দেন। ক্যাপশনে তিনি বলেন, “বিদেশে বসে তারেকের মনোনয়ন বাণিজ্যে ক্ষুব্ধ হয়ে তারেক রহমানের কঠোর সমালোচনা করলেন রিজভি। যত যাই বলেন না কেন রিজভির বুকের পাঠা আছে বলতে হবে।” ভিডিওটি শুধু এই গ্রুপ থেকে দুই সহস্রাধিক বার শেয়ার হয়েছে। বিডি ফ্যাক্টচেকের অনুসন্ধানে জানা যায়, ভিডিওটি লন্ডনের দ্য এট্রিয়াম হোটেলে ১৫ ডিসেম্বর ২০১৪ সালে দেওয়া রিজভীর একটি বক্তব্য। এই বক্তব্যে কিছু শব্দ সংযোজন বিয়োজন করে প্রচার করা হচ্ছে । আর তাতে রিজভীর বক্তব্যের সম্পূর্ণ ভিন্ন অর্থ দাঁড়াচ্ছে।

এবার দেখা যাক, রিজভীর বক্তব্যের কোন কোন অংশ বিকৃত করা হয়েছে:

বিকৃত ভিডিওতে যা দাবি করা হচ্ছে: "বিশ্ববিদ্যালয়ে ইতিহাসের ছাত্র ছিলাম। আমি আমার যতটুকু লেখা পড়া তাতে এইটুক বলতে পারি, ২৬ মার্চ থেকে অর্থাৎ স্বাধীনতারে ঘোষণা থেকে ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত জিয়াউর রহমানের কোনো অবদান নেই।"

মূল ভিডিওতে যা বলেছেন রিজভী: "বিশ্ববিদ্যালয়ে ইতিহাসের ছাত্র ছিলাম।  আমি আমার যতটুকু লেখা পড়া তাতে এইটুক বলতে পারি, ২৬ মার্চ থেকে অর্থাৎ স্বাধীনতারে ঘোষণা থেকে ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত আওয়ামী লীগ, আওয়ামী লীগের মূল নেতৃত্ব এবং মরহুম শেখ মুজিবুর রহমানের কোনো অবদান নেই। তাদের কিছু নেতৃবৃন্দের কিছু অবদান থাকতে পারে। কিন্তু এই পরিবারের কোনো অবদান নেই।"

এই অংশে “আওয়ামী লীগ, আওয়ামী লীগের মূল নেতৃত্ব এবং মরহুম শেখ মুজিবুর রহমানের কোনো অবদান নেই। তাদের কিছু নেতৃবৃন্দের কিছু অবদান থাকতে পারে। কিন্তু এই পরিবারের” শব্দগুলো কেটে “জিয়া রহমানের” অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে।

বিকৃত ভিডিওতে যা দাবি করা হচ্ছে: "জিয়াউর রহমান আইএসআই এর চর, জিয়াউর রহমান যুদ্ধ করেনি, এতকিছু ঘটনা।"

মূল ভিডিওতে যা বলেছেন রিজভী: "কত কি ঘটনা! জিয়াউর রহমান আইএসআই এর চর, জিয়াউর রহমান যুদ্ধ করেনি, এতকিছু ঘটনা। আপনার (শেখ হাসিনার) যদি যদি দেশপ্রেম থাকে তাহলে আপনার স্বামীর বয়স কত তখন।…  আপনার যদি এতই দেশপ্রেম থাকতো তাহলে আপনার তরুন স্বামীকে যুদ্ধে পাঠালেন না কেন?"

এখানে আওয়ামী লীগ যে জিয়াউর রহমানকে নিয়ে সমালোচনা করে তার উদাহরণ দিয়েছেন।

বিকৃত ভিডিওতে যা দাবি করা হচ্ছে:সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান লন্ডন থেকে যখন অত্যন্ত সুপরিকল্পিতভাবে স্বাধীনতা যুদ্ধ থেকে বিজয় দিবস পর্যন্ত যেসমস্ত বরেন্য নেতৃবৃন্দ দায়ী, যারা নেতৃত্ব দিয়েছেন, তাদেরকে কলংকিত করা তাদেরকে বিভিন্নভাবে কুরুচিপূর্ণ কথাবার্তা বলা।”

মূল ভিডিওতে যা বলেছেন রিজভী:অত্যন্ত সুপরিকল্পিতভাবে স্বাধীনতা যুদ্ধ থেকে বিজয় দিবস পর্যন্ত যেসমস্ত বরেন্য নেতৃবৃন্দ দায়ী, যারা নেতৃত্ব দিয়েছেন, তাদেরকে কলংকিত করা,  তাদেরকে বিভিন্নভাবে কুরুচিপূর্ণ কথাবার্ত বলা অথবা বিভ্রান্তি তৈরি করে একটা খুনঠাসা অবস্থার মধ্যে ফেলার প্রবণতা আমরা লক্ষ করি যখন আওয়ামী লীগ ক্ষমতাসীন হয়।”

এই অংশে শুরুতে "সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান লন্ডন থেকে যখন” যুক্ত করা হয়েছে। শেষ অংশে “অথবা বিভ্রান্তি তৈরি করে  একটা খুনঠাসা অবস্থার মধ্যে ফেলার প্রবণতা আমরা লক্ষ করি যখন আওয়ামী লীগ ক্ষমতাসীন হয়” বাদ দেয়া হয়েছে।

বিকৃত ভিডিওতে যা দাবি করা হচ্ছে:আপনি (তারেক রহমান) বিজয় দিবস, স্বাধীনতা দিবস, জাতীয় পতাকা নিয়ে কস্ট্রাকটারি করেন, ঠিকাদারি করেন। অথচ আপনার দেশপ্রেমের কোন চিহ্র আমরা পাই না।”

মুল ভিডিওতে রিজভী যা বলেছেন:কিন্তু আপনি শেখ হাসিনা ওয়াজেদ আপনি বিজয় দিবস, স্বাধীনতা দিবস, জাতীয় পতাকা নিয়ে কস্ট্রাকটারি করেন, ঠিকাদারি করেন। অথচ আপনার দেশপ্রেমের কোন চিহ্ন আমরা পাই না।

এই অংশে “কিন্তু আপনি শেখ হাসিনা ওয়াজেদ” এটা বাদ দেয়া হয়েছে।

বিকৃত ভিডিওতে যা দাবি করা হচ্ছে:মালেশিয়াতে অনেক ধরণের কারখানা করেছেন, ইন্ডাস্ট্রি করেছেন। অনেক টাকা আপনার।”

মুল ভিডিওতে যা বলেছেন রিজভী:আমি ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত দেখেছি আপনি (তারেক রহমান) কখনও বিরোধী দলীয় নেত্রীকে বাজে আক্রমণ করে কথা বলেননি। আপনার (তারেক রহমান) বিরুদ্ধে বলেছে, মালেশিয়াতে অনেক ধরণের কারখানা করেছেন, ইন্ডাস্ট্রি করেছেন। অনেক টাকা আপনার। আজকে পাঁচ বছর ক্ষমতায় থেকেছেন আন্তর্জাতিক মাস্টার প্লান করে আর একবছর আছেন ডাকাতি করে। কই কোথায় তো পারলেন না মালেশিয়ার কয়টা কারখানা আছে তারেক রহমানের বের করতে। কই এত যে কথা বলেছেন একটা টাকাও তো ফিরিয়ে নিয়ে আসতে পারলেন না বাইরে থেকে। শুধু মিথ্যাচার দিয়ে, শুধু নোংরামি করে, অপপ্রচার চালিয়ে আপনার রাজনীতি করেছেন। ”

এখানে দুই পাশের বক্তব্য বাদ দিয়ে এমনভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে যাতে মনে হচ্ছে এই কথাগুলো তারেক রহমানকে উদ্দেশ্য করে বলছেন।

মূল ভিডিওটির লিংক: https://bit.ly/2LpozE4

বিকৃত ভিডিওর লিংক: https://bit.ly/2ChQpiv

Related Post