পুরানো ছবিকে ঘিরে নতুন গুজব

25 January, 2019 05:01 AM আন্তর্জাতিক

ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদক:

সম্প্রতি অটো রিকশায় বসে থাকা তৃতীয় লিঙ্গের দুইজনের একটি বিশেষ ছবি(ক্যাপশন সহ) সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভেসে বেড়াচ্ছে। উক্ত ক্যাপশনটিতে দাবি করা হচ্ছে, এই দুইজন অবৈধভাবে দেহের অঙ্গপ্রত্যঙ্গ ব্যবসার সাথে জড়িত যা অনুসন্ধানে অসত্য বলে প্রমাণিত হয়েছে।

সামাজিক মাধ্যমে প্রকাশিত উক্ত ছবিটির ক্যাপশনটি মূলত বলছে, এই দুইজন নতুন ধরণের ডাকাত যারা নানা বাড়িতে যেয়ে কৌশলে নারীদের উপর আক্রমণ করে তাদের কিডনি চুরি করে ফেলে।

সামাজিক মাধ্যমে দেখা যাচ্ছে, উক্ত ছবিটি গত বছরের জুলাই মাসে এমডি হাসান নামক একটি ফেসবুক আইডি থেকে শেয়ার দেয়া হয়। শুধু একটি আইডি থেকেই এটি আট হাজারের বেশিবার শেয়ার করা হয়েছে। সম্প্রতি সেটি আবার ভাইরাল হয় এই বছরের জানুয়ারি মাসের ১৪ তারিখে। এছাড়াও দেখা গেছে আরো দুটি ভিন্ন ভিন্ন পোস্টে এই ছবিটি শেয়ার করা হচ্ছে।

ফ্যাক্টচেক-

জীবনঘাতী নানা ঘটনার দোহাই দিয়ে এই ছবিটিকে ব্যবহার করে গুজব ছড়ানো এইবারই প্রথম নয়। এমনকি ভারতেও গত বছর ছবিটির দুজনকে ছেলেধরা বলে দাবি করা হয়েছে নানা গুজবে।

মূলত ছবিটির আসল সুত্র ১৮ সালের মে মাসের তেলেগু ওয়েবসাইট teleguap2g.com। সেই ছবির আসল ঘটনাটিও ঘটেছিল তেলেঙ্গানার মাহবুবনগরে। সেখানে গত বছরের মে মাসে দুইজন তৃতীয় লিংগের হিজড়াকে অপহরণকারী সন্দেহে ধাওয়া এবং গণধোলাই দেয় স্থানীয় গ্রামবাসী। পরে সেই গুজবের খবরটি উঠে আসে তখনকার অল্টনিউজেও

পরবর্তীতে ভাইরাল হওয়া ছবিটি ২০১৭-১৮ সাল থেকে ভারতের নানা জায়গায় ভুয়া হোয়াটসঅ্যাপ ম্যাসেজের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। যার ফলশ্রুতিতে সেখানে ঘটে ৩০টির বেশি গণপিটুনি ও হত্যার মতো ঘটনা। সেসব গুজবে বলা হয় এইসব অপহরণকারী কেবল শিশুদের অপহরণ নয়, বরং তাদের হত্যা করে মূল্যবান কিডনি বেচে দেয়। ফলশ্রুতিতে এসব ছবি এবং ভিডিওর গুজব সেখানকার তামিলনাড়ু, কেরালা, কর্ণাটকা, মহারাষ্ট্র, উড়িষ্যা, বিহার এবং গুজরাটেও ছড়িয়ে পড়েছে।

এমনকি পাকিস্তানে শিশুদের অপহরণ রুখতে সকলের সচেতনতা বৃদ্ধির জন্যে তৈরি বিজ্ঞাপনেও এডিট করে এই ছবি ব্যবহার করা হয়েছে।

বুম লাইভের সৌজন্যে। মূল প্রতিবেদনটি পড়ুন

অনুবাদ করেছেন মিনহাজ আমান।

Related Post