ভোলায় সাত শিক্ষার্থীকে দলগত ধর্ষণ করার ভূয়া ছবি ভাইরাল

19:12 PM আইন-শৃংখলা

জাহেদ আরমান

ভোলার বোরহান উদ্দীন থানার আঃ জব্বার মহাবিদ্যালয়ের সাত জন ছাত্রীকে দলগত ধর্ষণ ও তিনজনকে হত্যা করেছে এমন একটি ছবি ভাইরাল হয়েছে। কিন্তু বিডি ফ্যাক্টচেক-এর অনুসন্ধানে জানা যায়, ছবিটি ভূয়া।

মঙ্গলবার বাংলাদেশে সময় বিকাল ৫টা ১৭ মিনিটে সাগর সাখাওয়াত  (Sagor Shakhawat) নামের একটি ফেসবুক আইডি থেকে এই ছবি প্রকাশ করা হয়। পাশাপাশি স্থাপিত দু’টি ছবিতে দেখা যাচ্ছে পাঁচজন মেয়ে মাটিতে পড়ে আছে আর তাদের মুখ ওড়না দিয়ে ঢাকা। আর পাশে একইরকম পোশাক পরা দুইজন শিক্ষার্থী হেঁটে যাচ্ছে।

ফেসবুকের স্ক্রিনশট।

ক্যাপশনে সাগর সাখাওয়াত লিখেন, “ভোলা জেলায় বোরহান উদ্দীন থানার আঃ জব্বার মহা বিদ্যালয়ের সাত জন ছাত্রীকে এক দল মুখোশধারী তুলে নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে এবং তিনজনকে হত্যা করে । আর বাকিরা আশংকাজনকভাবে হাসপাতালে চিকিৎসাধিন রয়েছেন।”

তিনি আরও বলেন, “প্রশাসনের নজর প্রসংশা নিয়ে, ছবি বানায় ঢাকা এট্যাক । কামের কাম কি হয়েছে ? ...এ রাষ্ট্র আমার না। যে রাষ্ট্রের পুলিশ সমুদ্র সৈকতে ঘুরতে গেলে কাবিননামা চায় । চেতনার সিরাপ খেয়ে অজ্ঞান থাকে সরকারি দল। সে দেশে নিরাপত্তাহীন রাষ্ট্রের নাগরিক আমার বোন-ভাই।”

কিন্তু বিডি ফ্যাক্টচেক-এর অনুসন্ধানে জানা যায়, ২০১৭ সালের ২৫ মে সেরাকণ্ঠ নামের একটি অখ্যাত অনলাইন পত্রিকা এই ছবি প্রকাশ করে। “৭ জন ছাত্রীকে গণরধর্ষণ করে ২ জনকে হত্যা” শিরোনামের সংবাদটিতে বলা হয়, “ধর্ষণ আর ধর্ষণ, মানুষের বিকৃত রুচির পরিচয় মেলছে দেশের আনাচে কানাচে, সর্বত্র । আর এই বিকৃত রুচির ফলে প্রাণ হারাচ্ছে অসখ্য নিষ্পাপ জীবন । ঘটনাটি দেশের ভোলা জেলায় । জানা যায়, ভোলা জেলার বোরহান উদ্দিন থানার আবদুল জব্বার মহাবিদ্যালয়ের ৭ জন ছাত্রীকে একদল মুখোশধারী যুবক তুলে নিয়ে গণধর্ষণ করে । শুধু ধর্ষণই শেষ নয়, নিস্পাপ এই ৭ জন শিক্ষার্থীর মধ্য থেকে দুই জনকে ধর্ষকরা নির্মমভাবে হত্যা করে । আর বাকি পাঁচজন বর্তমানে ভোলা জেলার বোরহান উদ্দিন থানার স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে । তাদের চিকিৎসা এখনও চলছে।”

বিডি ফ্যাক্টচেক-এর অনুসন্ধানে এ ধরণের ঘটনার কোনো সত্যতা পাওয়া যায়নি। ভাইরাল হওয়া ছবি দুটোর গুগল সার্চ করে দেখা যায়, একটি অখ্যাত অনলাইন পোর্টালে ছবিসহ সংবাদটি এসেছে। বাংলাদেশের কোথাও এইরকম ঘটনা ঘটে থাকলে তা নিঃসন্দেতে মূলধারার গণমাধ্যমে প্রকাশ পেত।

এই ঘটনার সত্যতা যাচাইয়ে বিডি ফ্যাক্টচেক ভোলার বোরহানউদ্দীনে কর্মরত সাংবাদিক আকতার জব্বারের সঙ্গে যোগাযোগ করে। তিনি বলেন, “আমি খোঁজ নিয়ে দেখেছি এ ধরণের কোন ঘটনা এখানে ঘটেনি। তাছাড়া এত বড় একটা ঘটনা ঘটলেতো সারাদেশে তোলপাড় হয়ে যেতো।”

গুগল সার্চ করে আরও পাওয়া যায়, ২০১৬ সালের ৫ আগস্ট এই ছবি নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করে বরিশাল ক্রাইম নিউজ নামে একটি অনলাইন পোর্টাল। “এক ছবিতেই ভোলায় তোলপাড়!” শিরোনামের সংবাদে তারা বোরহানউদ্দীন থানা ও বোরহানউদ্দীন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সূত্রে জানায়, এই ধরণের কোনো ঘটনা ভোলায় ঘটেনি।

বরিশাল ক্রাইম নিউজ  এর স্ক্রিনশট।

সুতরাং দেখা যাচ্ছে ভাইরাল হওয়া ছবি দু’টি আজকের নয়। এর আগেও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও বিভিন্ন অনলাইন সংবাদপত্রে ছবি দু’টি এসেছে। বিডি ফ্যাক্টচেক-এর নিজস্ব অনুসন্ধান, অন্য সংবাদপত্র এবং গুগল অনসন্ধান করে এই ঘটনার কোনো সত্যতা নিশ্চিত করা যায়নি।

Related Post