ভূয়া খবর: খালেদা জিয়ার জামিন চেয়ে এরদোগানের বিবৃতি

18:03 PM আন্তর্জাতিক

কদরুদ্দীন শিশির

গত তিন/চার দিন ধরে ফেসবুক ও ইউটিউবে একটি খবর অনেকে শেয়ার করছেন। তাতে দাবি করা হয়েছে, ‍"তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান বলেছেন, বাংলাদেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী এবং রাজনৈতিক নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে জামিন না দিয়ে তার সঙ্গে অন্যায় করা হচ্ছে। রাষ্ট্রের জন্য যারা হুমকি এবং কেউ যদি কোন অন্যায় করে থাকে তবে তাকে কারাগারে রাখা যেতে পারে। কিন্তু আমি এ বিষয়ে খোঁজ-খবর নিয়েছি, আমার জানা মতে খালেদা জিয়া জামিন না পাওয়ার মতো কোন অন্যায় করেননি। সুতরাং তার জামিন পাওয়াটা ন্যায্য অধিকার।"

তুরস্কের সরকাপন্থি পত্রিকা ‘ডেইলি সাবাহ’ এর বরাতে বাংলাদেশের কয়েকটি ভুঁইফোড় অনলাইন পোর্টাল এবং ইউটিউব চ্যানেলে খবরটি প্রকাশ করা হয়েছে। এসব ভিডিও হাজার হাজার বার 'ভিউ' হয়েছে, এবং অনেকে সেগুলো সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার করছেন। যদিও মূলধারার কোনো সংবাদমাধ্যমে খালেদা জিয়াকে নিয়ে এরদোগানের এমন বিবৃতির কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি।

bdfactcheck.com এর পক্ষ থেকে Daily Sabah এর ওয়েবসাইট (www.dailysabah.com), তুরস্কের প্রেসিডেন্টের কার্যালয়ের ওয়েবসাইট www.tccb.gov.tr/en -এ অনুসন্ধান করে এ ধরনের কোনো বিবৃতির খবর পাওয়া যায়নি।

এছাড়া Erdogan Khaleda Zia, dailysabah Khaleda Zia ইত্যাদি কীওয়ার্ড দিয়ে গুগল সার্চ করে কোনো এ সংক্রান্ত কোনো খবর পাওয়া যায়নি। তুরস্কের প্রেসিডেন্ট বাংলাদেশের বা অন্য কোনো দেশের কোনো নেতা/নেত্রীকে বা অন্যান্য বিষয়ে কোনো বিবৃতি/বক্তব্য দিলে তা সেদেশের সরকারি-সরকারপন্থি কোনো না কোনো সংবাদমাধ্যমে খবর হিসেবে প্রকাশিত হতো- এটা নিশ্চিত করে বলা যায়।

বাংলাদেশের যেসব ভুঁইফোড় অনলাইন পোর্টাল ও ইউটিউব চ্যানেলে খবরটি পরিবেশন করা হয়েছে সেগুলোর কোনোটিতেই 'কবে এই বিবৃতি দেয়া হয়েছে'- তার কোনো তারিখ দেয়া হয়নি।

ডেইলি সাবাহ এর ওয়েবসাইটে Khaleda Zia লিখে সার্চ দিলে নামটি সম্বলিত যেসব প্রতিবেদন আসে তাতে এরদোগানের উপরিউক্ত বিবৃতি/বক্তব্য সংক্রান্ত কিছু নেই। এবং চলতি বছরেরও কোনো প্রতিবেদন পাওয়া যায়নি সেখানে। 

 

যে পত্রিকার নাম উল্লেখ করা হয়েছে সেটির ওয়েবসাইটে গিয়ে কিছু পাওয়া যায়নি, তুরস্কের প্রেসিডেন্টের কার্যালয়ের অফিসে কিছু নেই, তুরস্কের অন্যান্য মিডিয়ায়ও এরকম কিছুর অস্তিত্ব মিলেনি, এবং বাংলাদেশের স্বীকৃত কোনো সংবাদমাধ্যমেও কোনো খবর নেই এ নিয়ে। এসব বিষয়ে আমলে নিয়ে এটা নিশ্চিত করে বলা যায় খবরটি ভূয়া। এছাড়া কথিত প্রতিবেদনগুলোর ভাষা দেখলেও এটা স্পষ্ট হয় যে, সস্তা প্রচারণার জন্য এগুলো বানানো হয়েছে। 

একটি ভিডিও শিরোনাম, 'ভিউ'


ভূয়া খবর ছড়ানো কয়েকটি ভিডিওর লিংক:

https://www.youtube.com/watch?v=OqhnuBLFuec

https://www.youtube.com/watch?v=4kIwe_xQpbE

https://www.youtube.com/watch?v=I3nAAt0W4bQ

https://www.youtube.com/watch?v=5SrALZC0Lxk

https://www.youtube.com/watch?v=S9OwA1by4IM


একটি অখ্যাত পোর্টালের প্রতিবেদনের স্ক্রিনশট

Related Post