ক্যাম্পাসে ‘বহিরাগতদের’ নিষিদ্ধ করেনি ঢাবি প্রশাসন?

11:07 AM সংস্থা/প্রতিষ্ঠান

ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদক:

গত ৯ জুলাই বাংলাদেশের সংবাদাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয় যে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ‘বহিরাগতদের’ অবস্থান ও ঘোরাফেরা নিষিদ্ধ করেছে কর্তৃপক্ষ। বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠানো একটি প্রেস রিলিজের বরাতেই এ খবর ছাপা হয়। এরপর নানাপক্ষ এ নিয়ে সমালোচনায় সরব হন। ‘বহিরাগত’ বলতে কাদেরকে বুঝানো হচ্ছে, এবং কর্তৃপক্ষ তাদের এই নিষেধাজ্ঞা কিভাবে বাস্তবায়ন করবে- এ নিয়েও প্রশ্ন ওঠে।

আলোচনা-সমালোচনার প্রেক্ষিতে আজ ১১ জুলাই বুধবার নতুন প্রেস রিলিজ পাঠিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন দাবি করেছে ‘ক্যাম্পাসে বহিরাগত নিষিদ্ধ’ সংক্রান্ত খবরটি সংবাদমাধ্যমে খণ্ডিতভাবে এসেছে। আদৌ ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে কাউকে প্রবেশ বা গমনাগমণে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয় নাই।’

কিন্তু বাস্তবে দেখা যাচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সর্বশেষ প্রেস রিলিজের বক্তব্যটি আগের প্রেস রিলিজের সম্পূর্ণ বিপরীত। আগের (৯ জুলাই) প্রেস রিলিজে স্পষ্টভাবে উল্লেখ রয়েছে- ‘বহিরাগতরা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ/প্রক্টরের পূর্বানুমতি ছাড়া ক্যাম্পাসে অবস্থান ও ঘোরাফেরা এবং কোনো ধরনের কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারবে না’। সাথেও এও বলা হয়- ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস শুধুমাত্র এ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য উন্মুক্ত।’ পাশাপাশি প্রেস রিলিজে সতর্ক করা হয় এটা বলে যে, (বহিরাগতদের বিরুদ্ধে) ‘প্রয়োজনে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সহায়তা নেবেন।’

‘ক্যাম্পাস’ বলতে প্রথম প্রেস রিলিজে ‘আবাসিক হল/হোস্টেল’ বুঝানোর মতো বিভ্রান্তি সৃষ্টির সুযোগ নেই। কারণ ওই প্রেস রিলিজেই ‘আবাসিক হল/হোস্টেল’-এ অবৈধভাবে কেউ না থাকার বিষয়ে আলাদা নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিলো।

নিচে ৯ জুলাই ও ১১ ‍জুলাইয়ের দুটি প্রেস রিলিজ তুলে ধরা হলো। সবুজ দাগ দেয়া লাইনগুলো লক্ষ্য খেয়াল করলেই দুটির পারস্পরিক বিরোধিতা স্পষ্ট হবে। অর্থাৎ, প্রথম প্রেস রিলিজে ‘নিষিদ্ধ’ বলে ঘোষণা দেয়ার পর দ্বিতীয় প্রেস রিলিজে তা অস্বীকার করা হয়েছে।

৯ জুলাইয়ের প্রেস রিলিজ--


১১ জুলাইয়ের প্রেস রিলিজ--

 

Related Post